Bikes Compare

July 15, 2021
কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার বাইক দাম, ফিচার রিভিউ

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার বাইক দাম, ফিচার রিভিউ

5/5 (1 Ratings)

বাংলাদেশে ডার্ট বাইকের খুব একটা প্রচলন না থাকলেও আমরা বাহিরের দেশগুলোতে

 ডার্ট মোটরসাইকেলের ব্যপক প্রচলন লক্ষ করি। আর কাওয়াসাকি হচ্ছে এমন একটি মোটরসাইকেল কোম্পানি যারা এই ডার্ট বাইক উৎপাদন করা থাকে এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তাদের এই ডার্ট মোটরসাইকেলের ব্যপক চাহিদা রয়েছে। বাংলাদেশ এখনো সে হারে ডার্ট মোটরসাইকেল আমদানি না করলেও ভবিষ্যতে এর বেশ চাহিদা থাকবে বলে আশা করা যায়। আর এই বাইকগুলো দেখতে ভিন্ন ধরণের হওয়াই মোটরসাইকেল প্রেমিদের অন্যরকম একটা আগ্রহ থাকাটা স্বাভাবিক। আর আজকে আমি কাওয়াসাকি মোটরসাইকেল কোম্পানির একটি ডার্ট বাইক সম্পর্কে আপনাদের মাঝে তথ্য উপস্থাপন করবো আর সেই মোটরসাইকেলটি হচ্ছে কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার। তো চলুন জেনে নেয়া যাক এই ডার্ট বাইকটি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্যসমূহ।

ডিজাইন

ডার্ট বাইক মানেই ভিন্ন ধরণের ডিজাইনের মোটরসাইকেল আর সেদিক থেকে এই মোটরসাইকেলও বেশ ভিন্ন ধরণের ডিজাইনের। আর এই বাইকের অন্যতম অদ্ভুত জিনিস হচ্ছে এর সাইলেন্সার পাইপ যেখানে অন্য সকল বাইকের সাইলেন্সার ইঞ্জিনের নিচে এবং পেছনের চাকার সোজাসুজি থাকে সেখানে এই বাইকের সাইলেন্সার পাইপটি রয়েছে একদম সিটের নিচের অংশে এবং পেছনের চাকার উপর দিয়ে যা সত্যিই বেশ অদ্ভুত ধরণের দেখতে। আর লম্বা দেহের এই বাইকের বডি এবং বাইকের দুই চাকার মধ্যে অনেকখানি দূরত্ব রাখা হয়েছে। আর বাইকটিতে রয়েছে একদম ভিন্ন ধরণের ডিজাইনের ছোট আকারের একটি ফুয়েল ট্যাংক এবং ছোট আকারের একটি বসার সিট যেখানে শুধু বাইক চালক একাই আরহন করতে পারবেন।

ইঞ্জিন

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার এই মোটরসাইকেলে রয়েছে একটি এয়ার কোল্ড কুলিং সিস্টেম, ৪টি স্ট্রোক, সিঙ্গেল সিলিন্ডার, এসোএইচসি এবং ২টি ভাল্ভ সমৃদ্ধ ইঞ্জিন। আর এই বাইকের ডিসপ্লেসিমেন্ট ইঞ্জিন হচ্ছে ১৪৪ সিসি। এছাড়াও এই বাইকের সর্বচ্চ ইঞ্জিন পাওয়ার হচ্ছে ১২.০ পিএস এবং ৮০০০ আরপিএম, এবং এর সর্বচ্চ তোরকিউ হচ্ছে ১১.৩ এনএম এবং ৬৫০০ আরপিএম। আর এই ইঞ্জিনের ডিসি-সিডি আই ধরণের ইগনিশন সিস্টেম এবং এনসিবি ২৪ কার্বুরেটর এই ইঞ্জিনকে করে তুলেছে আরো সমৃদ্ধ এবং শক্তিশালী।

গিয়ার

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার এই অসাধারণ ডার্ট ধরণের বাইকটিতে আপনি পাবেন ৫টি গিয়ার সমৃদ্ধ একটি গিয়ারবক্স যেখানে সর্বচ্চ ৫ বার বাইকার এই বাইকের গিয়ার বদলাতে পারবেন। 

স্পিড এবং মাইলিয়েজ

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার এই ভিন্ন ধরণের মোটরসাইকেলটি আপনাকে ভাল মানের স্পিড এবং মাইলিয়েজ দেবে কারণ এই মোটরসাইকেলটি ঘন্টায় সর্বচ্চ ১৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত গতি বেগে ছুটতে সক্ষম যা বেশ ভাল মানের স্পিডএবং এই বাইকটি প্রতি লিটারে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে সক্ষম যা মোটামুটি ভাল মানের মাইলিয়েজ

ফুয়েল ট্যাংক 

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার এই মোটরসাইকেলটিতে রয়েছে ছোট আকারের এবং ভিন্ন ধরণের ডিজাইনের একটি ফুয়েল ট্যাংক,তবে এই বাইকের ফুয়েল ট্যাংকটি ছোট আকারের হওয়াই এটিতে খুব বেশি ফুয়েল ধারণ ক্ষমতা নেই এই ফুয়েল ট্যাংকটি সর্বচ্চ ৭ লিটার পর্যন্ত ফুয়েল ধারণ করতে সক্ষম যার দ্বারা আপনি ৩৫০ কিলোমিটার যেতে পারবেন সম্পূর্ণ ভর্তি ফুয়েল ট্যাংকে।

সাস্পেনশন

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার এই মোটরসাইকেলটিতে দুইটি মজবুত এবং ভিন্ন ধরণের সাস্পেনশন সিস্টেম আছে যা এই বাইকটিকে আরো মজবুত রাখতে সহায়তা করবে। এর সামনের দিকে রয়েছে একটি টেলিস্কপিক ইউ এস ডি ৩৫ এম এম সাস্পেনশন এবং পেছনের দিকে একটি ইউনি ট্র্যাক এর সাথে ৫ ওয়ে এডজাস্টেবল প্রিলোড ধরণের সাস্পেনশন সিস্টেম রয়েছে

ব্রেক

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার বাইকারদের নিরাপত্তার সার্থে দুটি শক্তিশালি ব্রেকিং সিস্টেম তৈরি করেছে যেগুলোর মাধ্যমে আপনি এই বাইকটিকে সহজেই নিয়ন্ত্রন করতে পারবেন। কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার বাইকের সামনের দিকে একটি ডিস্ক ব্রেক এবং পেছনের দিকেও একটি ডিস্ক ধরণের ব্রেকিং সিস্টেম সংযুক্ত করা হয়েছে

দাম

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার মোটরসাইকেলটি বাংলাদেশের বাজার অনুসারে এর বর্তমান বাজার মূল্য মাত্র ৪,০০০০০ টাকা।  

শেষ কথা

কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার হচ্ছে একটি ডার্ট ক্যাটাগরির মোটরসাইকেল আর এই ক্যাটাগরির মোটরসাইকেল বাংলাদেশে খুব একটা প্রচলিত না থাকলেও কিছু কিছু মানুষ এ ধরণের ভিন্ন ধর্মী বাইক ব্যবহার করতে চান। তবে বাহিরের দেশগুলোতে অনেককেই ডার্ট বাইক ব্যবহার করতে দেখা যায়। আর এই বাইকটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার পর এটা বলা যাই যে এই বাইকে রয়েছে ইউনিক ডিজাইন এবং অসাধারণ শক্তিশালী সব ফিচার যেগুলো যে কোন মোটরসাইকেল প্রেমিকে আকৃষ্ট করবে সহজেই।

  

আজকের দাম জানতে ক্লিক করুন - কাওয়াসাকি ডি-ট্র্যাকার

Comments (0)

Find Bikes & Scooters

Top Brands

Search Bikes

Recent Reviews

Recent Advice